দুই দিনের দুনিয়া মুভি রিভিউ: এ যেন রূপকথার গল্প!

আজকে কথা বলবো chorki অরজিনাল ফিল্ম দুই দিনের দুনিয়া নিয়ে আজকে কথা বলবো chorki অরজিনাল ফিল্ম দুই দিনের দুনিয়া নিয়ে
দুই দিনের দুনিয়া মুভিটি কিভাবে দেখবো?

দুই দিনের দুনিয়া_ সিনেমা!

কি অসাধারণ একটি ফিল্ম দেখলাম ভাই, বাংলাদেশ স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম চরকিতে সদ্য মুক্তি পেল ওয়েব ফ্লিম দুই দিনের দুনিয়া! পরম বিশ্বাস পরিচালিত দুই দিনের দুনিয়া ফিল্মের প্রধান চরিত্রে ছিলেন চঞ্চল চৌধুরী এবং ফজলুর রহমান বাবু।

সেই সাথে আরও ছিলেন তানভীন সুইটি তানিয়া বৃষ্টি সহ আরো অনেকেই। দুই দিনের দুনিয়া একটি মিস্টেরিয়াস থ্রি লিয়ার ওয়েব ফিলিম। একদম শুরু থেকেই ফিল্মটা আপনাকে আঁকড়ে ধরে রাখবে। তারপর 85 মিনিট আপনার কোন দিক দিয়ে চলে যাবে আপনি টের'ই পাবেন না।

প্রথমেই দুই দিনের দুনিয়া ওয়েব ফিল্মের গল্পটা নিয়ে একটু বলে নিই! গল্পের চঞ্চল চৌধুরী একজন ট্রাক ড্রাইভার। যিনি হাইওয়েতে ট্রাক চালাই, তবে তিনি ট্রাক ড্রাইভার হলেও তার মধ্যে ঘাপলা আছে। এবং ফজলুর রহমান বাবু একজন রহস্য মানব! গল্পের শুরু থেকে শেষ অব্দি পুরোটা সময় জুড়েই ফজলুর রহমান বাবুর চরিত্র ছিল রহস্যময়।

তো হঠাৎই একদিন এই রহস্য মানব ফজলুর রহমান বাবু, চঞ্চল চৌধুরীর সাথে এসে যুক্ত হয়। তারপরই চঞ্চল চৌধুরীর সাথে ঘটতে থাকে, অদ্ভুত সব ঘটনা!

ফজলুর রহমান বাবুর পরিচয় জানতে চাইলে_

চঞ্চল চৌধুরী:- কোথা থেকে আইছেন?

ফজলুর রহমান বাবু:- জ্বী আমি ভবিষ্যত থেইকা আসছি!

এবং ফজলুর রহমান বাবু আগে থেকেই অনেক ঘটনা প্রেডিট করতে পারেন। যা গল্পের শুরুতেই তিনি চঞ্চল চৌধুরীকে দুই একটা ডেমো দেখিয়ে দেন।

তো পুরো গল্পটাই মূলত চঞ্চল চৌধুরী এবং ফজলুর রহমান বাবুকে নিয়ে চলতে থাকে। সেই সাথে চলতে থাকে চাপ আর থ্রিল। ফজলুর রহমান বাবুর কিছু রহস্য এবং অদ্ভুত সব ঘটনা ঘটতে থাকে চঞ্চল চৌধুরীর সাথে।

তানভীন সুইটি এবং তানিয়া বৃষ্টি দুজনই হচ্ছে চঞ্চল চৌধুরীর স্ত্রী। এবং মৌসুমী হামিদের একটা কেমিয়ো রয়েছে এখানে। সত্যি বলতে গল্পটা খুব বেশি স্ট্রং কোনো গল্প ছিল না । তবে, ফিল্মের ইস্টোরিং টেলিংটা ছিল অসাধারণ। এবং ফিল্মে শুরু থেকেই একটু পর পর নতুন নতুন বিষয়ে আমাদের সামনে আনা হচ্ছিল।

যার কারণে পুরো গল্পটা জুড়েই বা পুরো ফিল্ম জুড়েই আপনাকে আঁকড়ে ধরে রাখবে। আর ফিল্ম টার রানটা কিন্তু খুব বেশি ছিল না। মাত্র ৮৫ মিনিট, মানে দেড় ঘন্টারও কম। So এই রান টাইমে ৮৫ মিনিট রান টাইম, একটা ওয়েব ফ্লিম হিসেবে পারফেক্ট বলা যায়। সো সব মিলিয়ে আপনার বোর হওয়ার চান্স নেই।

এখন আপনি যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন! যে দুইদিনের দুনিয়া web ফিল্মটার সবচাইতে স্ট্রং দিক আমার কাছে কি লেগেছে? তাহলে আমি নির্দ্বিধায় বলবো ফিল্মটার লোকেশন এবং ক্যামেরার কাজ।

এত চমৎকার সব লোকেশনের স্যুট হয়েছে এবং এত চমৎকার সব ক্যামেরার কাজ, এত চমৎকার ফেভিং করা হয়েছে, যে প্রতি মুহূর্তে আপনার মুগ্ধতার পরিমাণ শুধু বাড়বে।

বিশেষ করে কিছু ড্রোন শর্ট এবং ফেমিং এর মধ্যে খুবই ক্রিটিভিটির ছোঁয়া ছিল। সেই সাথে কালার গেডিং ছিল একদম টপনছ। ফিল্মের আরও একটি স্ট্রং পয়েন্ট ছিল ফিল্ম টার বিজিএম। মিষ্টরিয়াস ফিল্ম হিসেবে ফিল্মটার বিজিএম খুবই টাচিং ছিল।

সেই সাথে বিজিএম এর বদলতে আপনাকে একদম গল্পের মধ্যে নিয়ে যাবে। বিজিএম এর সাথে সাউন্ড মিক্সিং এবং বাদবাকি এডিটিং ছিল অসাধারণ। 

এত কিছুর কথা বললেও ফ্লিমটার অভিনয় নিয়ে কেন কিছু বলছি না? কারণ যেই ফিল্মে চঞ্চল চৌধুরী এবং ফজলুর রহমান বাবুর মতো দুইজন লিজেন্ডধারি অভিনেতা রয়েছে, সেখানে অভিনয় নিয়ে কি আর বলব।

চঞ্চল চৌধুরী তার চরিত্র অনুযায়ী একদম পারফেক্ট ছিলেন। তাকে দেখে মনে হচ্ছিল না যে তিনি অভিনয় করছেন। তাকে দেখে মনে হচ্ছিল তিনি একজন ট্রাক ড্রাইভারই। সেই সাথে চঞ্চল চৌধুরীর হেলপার চরিত্রে থাকা ছেলেটির অভিনয় ছিল মোটামুটি বেশ ভালো। তবে, কিছু কিছু জায়গায় তার অভিনয়ের একটু ঘাটতি দেখা গেছে।

দুই দিনের দুনিয়া সিনেমাটি কিভাবে দেখবো?

চঞ্চল চৌধুরীর দুই স্ত্রী, মানে তানভীর সুইটি এবং তানিয়া বৃষ্টি তারা ছিলেন বেশ সাবলীল। এবং চরিত্র অনুযায়ী একদম পারফেক্ট। বাদ বাকি দুই একটা সাইট ক্যারেক্টারও বেশ ভালই ছিলেন, মানে কারো অভিনয়ের ঘাটতি তেমন নজরে পড়েনি। তবে, পুরো ফিল্মে আমি সবথেকে বেশি এগিয়ে রাখবো ফজলুর রহমান বাবু কে।

পার্সোনালি আমার কাছে মনে হয়েছে যে এই ফিল্ম টাতে ফজলুর রহমান বাবু চঞ্চল চৌধুরী কেউ ছাপিয়ে গেছেন। এই ফিল্মটাতে ফজলুর রহমান বাবুর চরিত্রটা ছিল মিস্টেরিয়া।

যার কারণে তার খুব বেশি ডায়লগ ও ছিল না। আর যখন একটা চরিত্রের খুব বেশি ডায়লগ থাকে না তখন তাকে অভিনয় করতে হয় চোখ দিয়ে। আর এই কাজ টাই, মানে চোখ দিয়ে অভিনয় কারার কাজটাই ফজলুর রহমান বাবু বেশ ভালোভাবে সম্পাদন করেছেন।

সো সব মিলিয়ে দুইদিনের দুনিয়া ওয়েব ফিল্মটির সেরা অভিনয়ের কথা বললে, আমি অবশ্যই ফজলুর রহমান বাবুর কথা বলব। দুইদিনে দুনিয়া ফিল্মটা একটা ওয়েব ফিল্ম হিসেবে দারুন ছিল। আমরা জানি যে ওয়েব ফিল্মগুলোর বাজেট মূলত কম হয়ে থাকে।

মানে, মেইস্টিং ফিল্মগুলোর মত অত কখনোই ওয়েব ফিল্মে থাকেনা। বাট এই স্বল্প বাজেটের মধ্যেই দুইদিনের দুনিয়া web ফিল্মটা মেকিং খুবই স্ট্রং ছিল।

মানে কোথাও দেখে মনে হচ্ছিল না এটা একটা স্বল্প বাজেটের ফিল্ম। সেই সাথে ছোট বড় সকল চরিত্র থেকে সেরা অভিনয়টা বের করে নিয়েছেন পরিচালক অলং বিশ্বাস।

অলং বিশ্বাসের ডিরেকশন কে দশে আট তো দিতেই হবে। সো সব মিলিয়ে বলতে হবে দুই দিনের দুনিয়া ফিল্মটা উপভোগ করার মত একটা ওয়েব ফিল্ম। 

৮৫ মিনিট রান টাইম এর এই ফিল্ম টা আপনারা দেখতে পারবেন বাংলাদেশি স্টিমিং প্ল্যাটফর্ম চরকিতে। সো দেরি না করে এখনি দেখে ফেলুন মিস্টোরিয়াস থ্রিলার অয়েব ফিল্ম দুদিনের দুনিয়া। আশা করি হতাশ হবেন না!

দিন দুনিয়া মুভিটি কিভাবে দেখতে হয়?

দেরি না করে আপনার সময় থাকলে দেখে নিতে পারেন দুই দিনের দুনিয়া আমাকে জানাতে পারেন ভিন্ন মত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

তো এই দুই দিনের মুভিটি যারা কিভাবে দেখতে হয় জানেন না তাদের জন্য বলছি এটি দেখার জন্য প্রথমে আপনার ফোনের মধ্যে থাকা গুগল প্লে স্টোরে চলে যাবেন এবং সেখান থেকে Chorki অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিবেন।

তারপর chorki অ্যাপে প্রবেশ করে কাঙ্খিত মুভিটির নাম লিখে সার্চ দিয়ে দেখে নিতে পারবেন ধন্যবাদ।

১টি মন্তব্য

  1. Nice